শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ১২:২৬ পূর্বাহ্ন

পেকুয়ায় গাছের আম কাঠাল ছিনিয়ে নেয়ার প্রতিবাদ করায় বৃদ্ধকে পিটুনি

Reporter Name
  • প্রকাশিত : শনিবার, ৫ জুন, ২০২১
  • ২ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিবেদক::

কক্সবাজারের পেকুয়ায় গাছের আম ও কাঠাল জোরপূর্বক ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রতিবাদ করায় মোঃ নুরুচ্ছফা (৬৫) নামে এক বৃদ্ধকে মেরে আহত করেছে দুর্বৃত্তরা।

গতকাল বিকেল ৫টার দিকে বারবাকিয়া ইউনিয়নের নাজির বাড়ির উত্তর নাথ পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত বৃদ্ধ একই এলাকার মৃত আহমদ হোসনের ছেলে।

এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে একই এলাকার মোঃ আবছার, তার ছেলে নজরুল ইসলাম জনি ও আরিফুল ইসলামকে বিবাদী করে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে বাদী নুরুচ্ছফা উল্লেখ করেন, দীর্ঘ ২০ বছর ধরে পাহাড়ি এলাকার উত্তর নাথ পাড়ায় বসবাস করে আসছেন। আর্থিক অভাবের কারণে নিজের রোপিত গাছের আম ও কাঠাল বিক্রি করে সংসারের ব্যয় নির্বাহ করে আসছেন। এর আগেও বেশ কয়েকবার বিবাদীরা গাছের আম ও কাঠাল জোরপূর্বক নিয়ে গিয়েছিল। সর্বশেষ গতকাল তারা সংঘবদ্ধ হয়ে আম কাঠাল নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে বাদী বাধা প্রদান করলে মেরে আহত করেন।

এমনকি বাড়ির দখল ছেড়ে অন্যত্র চলে যাওয়ার জন্যও হুমকি প্রদান করেছেন। যার কারণে তিনি স্ত্রী সন্তান নিয়ে আতংকের মধ্যে দিনযাপন করছেন।

অসহায় বৃদ্ধ নুরুচ্ছফা বলেন, আমার স্ত্রীর নামে ১৯৯৯ সালে শ্রীমতি দীপালি প্রভা দেবী প্রকাশ দিপালী রাণী নাথ থেকে বেশ কিছু জমি ক্রয় করি। ওই জমি দখল বুঝিয়ে নেয়ার পর বাড়ি নির্মাণ ছাড়াও কিছু জায়গায় এনজিও সংস্থার মাধ্যমে স্কুল দিলে তা ৫ বছর পর্যন্ত চলমান ছিল। এরপর ওই জায়গায় বনজ ও ফলজ গাছ রোপন করি। তার আয় থেকে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি।

ওই জায়গা নিয়ে আমার ভাই আবছার ও তার সন্তানেরা বিরোধ সৃষ্টি করলে বারবাকিয়া ইউনিয়ন পরিষদ বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। স্থানীয় গ্রাম আদালত কাগজপত্র বিশ্লেষণ করে দুই পক্ষের বৈঠকে জায়গা আমাদের বলে রায় প্রচার করে লিখিত আদেশ প্রদান করেন।

ওই আদেশ অমান্য করে আমাদের দখলীয় জমি জোরপূর্বক জবর দখল করার চেষ্টা করলে স্ত্রী রাবেয়া বেগম বাধা প্রদান করলে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেন এবং মেয়ে জারিয়াকে মারধর করে আহত করে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করার পর আবছার কারাবরণ করেন।

এরপর আবছার বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে আমার দখলীয় জমি জবর দখল চক্রান্তের অংশ হিসাবে আমাকে বিবাদী করে ১৪৪ ধারা মতে আবেদন করলে উপজেলা প্রশাসনের সহকারি কমিশনার (ভূমি) মিকি মারমার নির্দেশে বারবাকিয়ার তহসিলদার জমির স্থানে গিয়ে সরেজমিন গিয়ে তথ্য উপাত্ত নিয়ে বিরোধীয় জমি আমার বলে প্রতিবেদন প্রদান করেন।

তিনি আরো বলেন, আমি খুব অসহায়। ছেলেরা বিয়ে করে অন্যত্র চলে গেছেন। মেয়েরাও বিয়ে করে স্বামীর ঘরে রয়েছে। স্ত্রী নিয়ে অসহায় অবস্থায় দিনাতিপাত করছি। তার মাঝে আবছারের এক ছেলে সেনাবাহিনীর চাকরি করেন। যখনি তিনি ছুটিতে আসেন তখনি আমার ও পরিবারের উপর জুলুম নির্যাতন শুরু করেন। আমাদের ক্রয়কৃত জমি জবর দখল করার চেষ্টা করেন। মারধর করে আহত করেন আমাদের। বৃদ্ধ মানুষ প্রতিবাদ করার সাহস পাইনা। থানা প্রশাসন এর আগেও আমাকে ন্যায়গতভাবে সহযোগিতা করেছেন। গতকালও পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে তারা কেউ দেখা করেনি। আশা করি আমি ন্যায় বিচার পাবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

 

  • সম্পাদক ও প্রকাশকঃ মীর মোকাদ্দেস হোসাইন 
  • বার্তা সম্পাদকঃ এম.এ.কে রানা
 
উপকূল বার্তা ২৪.কম এ প্রকাশিত/ প্রচারিত সংবাদ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ ।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্যমন্ত্রনালয়ের নিয়ম মেনে নিবন্ধনের আবেদন চলমান
Design And Development :: Sky Host BD